05:48pm  Wednesday, 02 Dec 2020 || 
   
শিরোনাম
 »  বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ প্রজন্মলীগ ঢাকা মহানগর উত্তর কমিটি গঠন     »  বিতর্কিত এক কাউন্সিলরের নাম এম এ মান্নান; চাঁদা থেকে মাদক সব যার দখলে     »  আজ ২ ডিসেম্বর; আজকের দিনে জন্ম-মৃত্যুসহ যত ঘটনা     »  শিবগঞ্জে রাস্তায় দূর্ঘটনার মূল কারণ জমি বেদখল     »  শিবগঞ্জের যত খবর     »  বিরামপুরে মুক্তিযোদ্ধাদের স্বরণে আলোচনা ও দোয়া অনুষ্ঠিত     »  একুশে টিভির ঝালকাঠি জেলা প্রতিনিধির বাসভবনে রহস্যজনক অগ্নীকান্ড     »  শুরু হচ্ছে শিক্ষার্থীদের বঙ্গবন্ধু কুইজ     »  পেঁয়াজ বীমা নামে একটি কর্মসূচী গ্রহণ করা হচ্ছে     »  ভ্যাকসিন ট্রায়াল চুক্তি বাতিল করেছে গ্লোব বায়োটেক ফার্মাসিউটিক্যালস   



ফরিদপুরের আলোচিত বরকত-রুবেলের বিরুদ্ধে দুদকের দুই মামলা
১২ নভেম্বর ২০২০, বৃহস্পতিবার, ২৮ কার্তিক ১৪২৭, ২৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪২



অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে ফরিদপুরের আলোচিত দুই ভাই সাজ্জাদ হোসেন বরকত ও মো. ইমতিয়াজ হাসান রুবেলের বিরুদ্ধে আলাদা দু'টি মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। বৃহস্পতিবার  দুদকের ঢাকাস্থ প্রধান কার্যালয়ের উপপরিচালক মো. আলী আকবর বাদি হয়ে কমিশনের ঢাকা-১ কার্যালয়ে মামলাটি করেন।

এজাহারে বলা হয়, দুই ভাই দুর্নীতির মাধ্যমে নামে-বেনামে ৭২ কোটি ৮৪ লাখ ৭৯ হাজার টাকার স্থাবর-অস্থাবর সম্পদের মালিক হয়েছেন। তাদের নামে-বেনামে বিপুল পরিমাণ জমি, বাড়ি, গাড়ি, ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে। দুই ভাই মোট ৩২৬টি দলিলের বিপরীতে প্রায় ৫০০ বিঘা জমির মালিক হয়েছেন। দুদকের কাছে তাদের অবৈধ সম্পদের রেকর্ডভিত্তিক প্রমাণ রয়েছে।

সংশ্নিষ্ট সূত্র জানায়, এই দুই ভাই প্রভাব খাটিয়ে, মাস্তানি, চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজির মাধ্যমে সম্পদের পাহাড় গড়েছেন। ছোট ব্যবসা ও ছোট চাকরি দিয়ে তাদের কর্মজীবন শুরু হলেও বরকত ক্ষমতাসীন দলের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হওয়ার পর থেকে তাদের জীবন ধারা পাল্টে যায়। রাতারাতি বিপুল অর্থ-বিত্তের মালিক হন তারা। দুদকের মামলায় তাদের বিপুল পরিমাণ জমির মালিক হওয়ার তথ্য উল্লেখ করা হয়েছে।

এজাহারে আরও বলা হয়, বরকত দুর্নীতির মাধ্যমে ৪৪ কোটি ৪৯ লাথ ৬৮ হাজার ৮৩২ টাকার মালিক হয়েছেন। দুদকে পেশ করা সম্পদ বিরবণীতে তিনি ৩৬ কোটি ৪০ লাখ ৫৫ হাজার ৬৫২ টাকার সম্পদের তথ্য গোপন করেছেন। রুবেলের নামে ২৮ কোটি ৩৫ লাখ ১০ হাজার ১৭০ টাকার সম্পদ পাওয়া যায়। তিনি দুদকে দেওয়া সম্পদ বিবরণীতে ১৭ কোটি ৯০ লাখ ৩ হাজার ১৪১ টাকার সম্পদের তথ্য গোপন করেছিলেন। তাদের বিরুদ্ধে দুদক আইন-২০০৪ এর ২৬(২) ও ২৭(১) ধারা ও মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন-২০১২ এর ৪(২) ও ৪(৩) ধারায় মামলা দু'টি করা হয়।

দুদক সূত্র জানায়, বরকত ১৯৯২ সালে এসএসসি পাস করার পর এইচএসসি পড়তে কলেজে ভর্তি হয়েছিলেন। পরে এইচএসসি পাস করা হয়নি। তার বড় ভাই রফিকুল ইসলাম কুয়েতে চাকরি করতেন বর্তমানে পৈত্রিক বাড়িতে থাকেন। ছোট ভাই ইমতিয়াজ হাসান রুবেল স্নাতক পাস করেছেন। সবার ছোট ভাই ইমতিয়াজ হাসান জুয়েল ফরিদপুর কৃষি কলেজে অধ্যাপনা করেন। বরকত লেখাপড়া বাদ দিয়ে ফরিদপুর শহরে রড/সিমেন্টের ব্যবসা শুরু করেছিলেন। এই ব্যবসার পাশাপাশি ঠিকাদারি কাজ শুরু করেন। পরে ২০১০-২০১১ সালে ব্যবসা বৃদ্ধি পাওয়ায় তিনি নিজ নামে এস.বি ট্রেডার্স নামক ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান চালু করেন। পরবর্তীতে ঠিকাদারী ব্যবসার ভলিয়ম উত্তরোত্তর প্রসার লাভ করায় এসবিসিইএল, বরকত এগ্রো লিমিটেড, ও সাউথ লাইন পরিবহন চালু করেন। ফরিদপুরের বিভিন্ন স্থানে তার নামে থাকা জমির ২২০টি দলিল রয়েছে।

বরকত ২০০৮ সালে অগ্রণী ব্যাংকে একটি হিসাব খুলেন। পরে ব্যবসা প্রসার লাভ করায় রূপালী, সোনালী, প্রাইম, স্ট্যান্ডার্ড, ইউসিবিএল, প্রিমিয়ার, ব্যাংক এশিয়া, পূবালী ব্যাংকের ফরিদপুর শাখায় হিসাব খুলেন। তার মালিকানাধীন সাউথ লাইন নামে একটি পরিহবহন চালু রয়েছে। এই পরিহবহনের নামে ১৬টি গাড়ি রয়েছে। স্ত্রী আফরোজা পারভীনের নামে ১টি বাস রয়েছে। নিজ নামে ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের নামে ৩টি গাড়ি রয়েছে। স্ত্রীর নামে 'প্রত্যাশা' নামীয় একটি ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে। স্থানীয় এলজিইডি, পিডব্লিউডি, পানি উন্নয়ন বোর্ড ও পৌরসভায় টেন্ডারের কাজে তার একচেটিয়া আধিপত্য ছিল।

দুদকের অনুসন্ধান থেকে জানা যায়, রুবেল ১৯৯৮ সালে স্নাতক পাস করেছেন। তিনি স্নাতক পাস করার আগে ১৯৯৬ সালে দিনাজপুরে 'সিংগার বাংলাদেশে' চাকরি গ্রহণ করেছিলেন। ১৯৯৯ সনে চাকরি ছেড়ে আবার ফরিদপুর চলে আসেন। পরবর্তীতে ছোট একটি পল্লী ফার্ম পরিচালনা করেন। তিনি ২০০১ সালে মের্সাস রাফিয়া কন্সট্রাকশন প্রতিষ্ঠানের নামে ঠিকাদারি কাজ শুরু করেন। গত ২০১৭ সালে রাফিয়া কন্সট্রাশন লিমিটেডকে কোম্পানিতে পরিণত করেন। এই কোম্পানিতে স্ত্রী সোহেলী ইমরোজ পুনম পরিচালক ও দশ শতাংশ শেয়ারের মালিক। নিজে কোম্পানির ম্যানেজিং ডিরেক্টর (এমডি) হিসেবে ৯০ শতাংশ শেয়ারের মালিক।

অনুসন্ধানে রুবেলের নামে ও তার কোম্পানির নামে ফরিদপুর শহরসহ ফরিদপুরের আশেপাশে জমির ১০৬টি দলিল পাওয়া যায়। কোম্পানির নামে বিএমডব্লিউ-২০০৬ মডেলের ১টি গাড়ি, তার নিজ নামে ১৯৯৩ মডেলের পুরাতন টয়োটা গাড়ি ক্রয় করেন। কোম্পানির নামে ৪/৫টি মটর সাইকেল আছে। কন্সট্রাকশন কাজের জন্য ৩/৪টি ট্রাকসহ বিভিন্ন প্রকার ইকুইপমেন্ট রয়েছে। নিজ ও কোম্পানির নামে নির্মানাধীন সেমিপাকা দোকান ও ক্রয়কৃত জমিতে ৭/৮টি পুকুর আছে। চন্ডিপুর মৌজায় ভাড়া জমিতে ইটের ভাটা তৈরি করেছেন। তিনি ফরিদপুর শহরের ব্রাম্মনকান্দা পৈত্রিক বাড়িতে বসবাস করেন। তার স্ত্রীর নামে ৫০ ভরি স্বর্ণালংকার রয়েছে।

ঢাকা-১৮ আসনের উপনির্বাচন চলার সময় রাজধানীতে ৪ ঘণ্টায় ৮ বাসে আগুন


এই নিউজ মোট   1067    বার পড়া হয়েছে


দূর্ণীতি



বিজ্ঞাপন
ওকে নিউজ পরিবার
Shekh MD. Obydul Kabir
Editor
See More » 

প্রকাশক ও সম্পাদক : শেখ মো: ওবাইদুল কবির
ঠিকানা : ১২৪/৭, নিউ কাকরাইল রোড, শান্তিনগর প্লাজা (২য় তলা), শান্তিনগর, ঢাকা-১২১৭।, ফোন : ০১৬১৮১৮৩৬৭৭, ই-মেইল-oknews24bd@gmail.com
Powered by : OK NEWS (PVT) LTD.